"বাংলাকে বোঝার জন্য আমি অনেক পরিশ্রম করেছি। এবং একজন খাঁটি বাঙালির মতো আমি বাংলাকে বুঝতে পেরেছি। আমার মতে, বাংলা পরিবর্তনের জন্য প্রস্তুত। শুধু সরকার বা মুখ্যমন্ত্রী বদল নয়, বাংলার আমূল পরিবর্তন আমাদের উদ্দেশ্য।" - Amit Shah

1. 'দিদি আমি বহিরাগত নই, খাঁটি বাঙালির মতো বাংলাকে বোঝার চেষ্টা করছি', দমদমে বললেন শাহ

কলকাতা: প্রথম চার দফার নির্বাচন শেষে প্রচারে বেশ কিছুটা অভিনবত্ব এনেছে গেরুয়া শিবির। বড় বড় জনসভা ও রোড শো-র বদলে এ বার কলকাতা ও তার আশেপাশের এলাকায় সন্ধ্যা নাগাদ ছোট ছোট কর্মিসভার আয়োজন করছে বিজেপি। যে প্রচারের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছেন অমিত শাহ। বস্তুত, দলীয় কর্মীদের কাছাকাছি থাকতেই এই নতুন পন্থা নেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার এই মাইক্রোপ্রচারের প্রথম দিন দমদম বিধানসভা কেন্দ্রে টাউন হলে এলাকার কর্মী সমর্থকদের মুখোমুখি হন শাহ। সেখানে দীর্ঘ আলাপচারিতা করেন।

বঙ্গযুদ্ধ জেতার স্বার্থে তিনি যে দিনরাত পরিশ্রম করে চলেছেন সে কথা এ দিন নিজের মুখেই স্বীকার করেন শাহ। তাঁর কথায়, “পশ্চিমবঙ্গের প্রায় প্রত্যেক কোণে আমি গিয়েছি, বাংলাকে বোঝার চেষ্টা করছি। দিদি যতই আমায় বহিরাগত বলুন, কিন্তু বাংলাকে বোঝার জন্য আমি অনেক পরিশ্রম করেছি। এবং একজন খাঁটি বাঙালির মতো আমি বাংলাকে বুঝতে পেরেছি। আমার মতে, বাংলা পরিবর্তনের জন্য প্রস্তুত। শুধু সরকার বা মুখ্যমন্ত্রী বদল নয়, বাংলার আমূল পরিবর্তন আমাদের উদ্দেশ্য।”

‘বহিরাগত’ ইস্যুতেও এ দিন মমতাকে জোরাল আক্রমণ শানিয়েছেন শাহ। তাঁকে বলতে শোনা যায়, “আমি এই দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এই দেশে জন্মেছি, এই দেশেতেই মরব। আমি কীভাবে বহিরাগত হলাম? মমতা দিদি, আমি বহিরাগত নই। বহিরাগত তাঁরা যাদের ভোটব্যাঙ্কের সাহায্যে আপনি ১০ বছর ধরে বাংলা শাসন করছেন।” শাহের দাবি, “অনুপ্রবেশ এই মুহূর্তে কলকাতা ও তার সংলগ্ন এলাকার মানুষের জন্য খুব বড় সমস্যার আকারে না ধরা দিলেও ১০ বছর পর এই সমস্যায় তাঁরাও জর্জরিত হবেন।” আর এই অনুপ্রবেশ রুখতে একমাত্র বিজেপিই সক্ষম বলেও এ দিন ফের একবার দাবি করেছেন শাহ।

রাজ্যে বড় শিল্পায়নের যে অভাব রয়েছে তার জন্য পূর্বতন বাম সরকার এবং বর্তমান তৃণমূল সরকারেও একই ভাবে দুষেছেন শাহ। তাঁর দাবি, রাজ্যে কখনও এমন পরিবেশই তৈরি হয়নি যাতে বিনিয়োগ আসতে পারে।

আরও পড়ুন: জওয়ানদের উপর আক্রমণ হলে গুলি চলবে, সাফ কথা বিবেক দুবের

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চোট লাগার বিষয়েও এ দিন মুখ খুলতে শোনা যায় শাহকে। তিনি বলেন, “আমি প্রত্যেকদিন প্রার্থনা করি যাতে মমতাদি সুস্থ হয়ে যান। এবং আমি অন্তর থেকে চাই যাতে ২ মে-র আগে মমতাদির প্লাস্টার খুলে নেওয়া হয়। কারণ তিনি যখন পদত্যাগ করতে যাবেন তখন যেন নিজের পায়ে হেঁটে যান।” কিন্তু একই সঙ্গে তিনি প্রশ্ন তুলে দিয়ে বলেন, “মুখ্যমন্ত্রীর উপর হামলা হয়েছে কিন্তু সেটার একটাও ছবি দেখতে পাওয়া গেল না। এটা কি সম্ভব? যদিও ওঁর যে লেগেছে এতে কোনও সন্দেহ নেই।”